ঢাকা , সোমবার, ২০২২ সেপ্টেম্বর ২৬, ১১ আশ্বিন ১৪২৯

আন্তর্জাতিক

তেল-গ্যাস নিয়ে রাশিয়া-ইউরোপের টানাপোড়েন তুঙ্গে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | টুয়েন্টিফোর টিভি
প্রকাশিত : শনিবার, ২০২২ সেপ্টেম্বর ০৩, ০২:৪৬ অপরাহ্ন

রাশিয়ার তেলের দাম বেঁধে দেয়ার জি-৭ এর আলোচনার মধ্যেই অনির্দিষ্টকালের জন্য ইউরোপের সবচেয়ে বড় রুশ গ্যাসের পাইপলাইন নর্ড স্ট্রিম-১ বন্ধ ঘোষণা করেছে রাশিয়া। এতে রাশিয়া-ইউরোপের তেল-গ্যাস বাণিজ্য পড়েছে অনিশ্চয়তার মুখে।
 

বৈশ্বিক মূল্যস্ফীতি আর ইউক্রেন যুদ্ধে রাশিয়ার লাগাম টেনে ধরতে রাশিয়ার তেলের দাম বেঁধে দিতে একাট্টা পশ্চিমা বড় অর্থনীতির দেশগুলো। রাশিয়ার জন্য ইউক্রেন যুদ্ধে ব্যয় নির্বাহ কঠিন করে তুলতে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে জোটটি। এদিকে যেসব দেশ তেলের দাম বেঁধে দেবে, তাদের কাছে তেল বিক্রি করা হবে না বলে জানিয়েছে রাশিয়া।

 
বেঁধে দেয়া হচ্ছে তেলের দাম
 
শুক্রবার (২ সেপ্টেম্বর) ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়, জি-৭ জোটের অর্থমন্ত্রীরা জানিয়েছেন, নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি ‘বিনিময় মূল্যের’ চুক্তির ওপর তারা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করবেন। অপরিশোধিত ও পেট্রোলজাত পণ্যের মূল্য বেঁধে দেয়ার ফলে বৈশ্বিক জ্বালানির মূল্যও কমবে।
 
জি-৭ জোট বলছে, যত দিন প্রয়োজন তত দিন আমরা ইউক্রেনের পাশে দাঁড়াব। শক্তিশালী অর্থনীতির জি-৭ জোটের দেশগুলো হচ্ছে- যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, কানাডা, জার্মানি, ফ্রান্স, ইতালি এবং যুক্তরাজ্য। বৈশ্বিক বাণিজ্য ও আন্তর্জাতিক আর্থিক ব্যবস্থার নেতৃত্বে রয়েছে তারা।
 
যৌথ একটি বিবৃতিতে জোটের অর্থমন্ত্রীরা জানিয়েছেন, তেলের সর্বোচ্চ মূল্য নির্ধারণ করবে দেশগুলোর বড় একটি জোট, যা ইউরোপীয় ইউনিয়নের পরবর্তী নিষেধাজ্ঞাগুলোর সঙ্গে কার্যকর হবে।
 
রাশিয়ার তেলের মূল্যসীমা বেঁধে দিতে গত কয়েক মাস ধরে দেশগুলোকে চাপ দিয়ে আসছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসন। পশ্চিমা দেশগুলো ইতোমধ্যে রাশিয়ার বেশকিছু জ্বালানি পণ্যের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে।
 
রুশ তেলের মূল্য বেঁধে দেয়ার অর্থ হলো, যেসব দেশ এ নীতি মানবে তারা রাশিয়ার কাছ থেকে তেল ও পেট্রোলজাত পণ্য সাগরপথে আমদানি করতে পারবে কেবল ওই বেঁধে দেয়া মূল্য অথবা এর চেয়ে কম দামে।
 
ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক হামলার পর বিশ্বে তেলের দাম বেড়েছে এবং তা এখনো চড়া রয়েছে। ফলে দেশটির রফতানির পরিমাণ কমলেও জীবাশ্ম জ্বালানি থেকে আয় বেড়েছে।

 
তেল বিক্রি করবে না রাশিয়া

 
এদিকে রাশিয়ার জ্বালানি সম্পদের ওপর যেসব দেশ মূল্যসীমা বেঁধে দেবে তাদের কাছে তেল বিক্রি বন্ধ করে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে রাশিয়া।
 
শুক্রবার (২ সেপ্টেম্বর) এক সংবাদ সম্মেলনে ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বলেন, যেসব কোম্পানি মূল্যসীমা আরোপ করবে তারা আর রাশিয়ার তেল পাবে না। বাজারের সঙ্গে সম্পর্কিত নয় এমন নীতিতে আমরা তাদের সঙ্গে আর সহযোগিতা করব না।
 
এর আগে দেশটির উপপ্রধানমন্ত্রী আলেকসান্দর নোভাক বলেন, যারা বিধিনিষেধ আরোপ করবে আমরা সেসব কোম্পানি অথবা দেশগুলোর কাছে তেল এবং পেট্রোলিয়ামজাত পণ্য সরবরাহ পুরোপুরি বন্ধ করে দেব।
 
বন্ধ থাকছে নর্ড স্ট্রিম-১
 
রাশিয়ার তেলের ওপরে কড়াকড়ি আরোপের মধ্যেই রাশিয়া ইউরোপে গ্যাস রফতানিতে ব্যবহৃত প্রধান পাইপলাইন নর্ড স্ট্রিম-১ বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে। মেরামতের জন্য বুধবার (৩১ আগস্ট) থেকে পাইপলাইনটি বন্ধ থাকলেও তা শনিবার (৩ সেপ্টেম্বর) খুলে দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু পরিকল্পনা অনুযায়ী সেটি এখনই চালু করা সম্ভব নয় বলে জানিয়েছে ক্রেমলিন নিয়ন্ত্রিত এনার্জি জায়ান্ট গ্যাজপ্রম। ফলে, ইতোমধ্যে জ্বালানি সংকটে নাকাল ইউরোপ এবার অর্থনৈতিক মন্দার কবলে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা বিশেষজ্ঞদের।
 
শুক্রবার (২ সেপ্টেম্বর) গ্যাজপ্রমের পক্ষ থেকে বলা হয়, মেরামতের কাজ শেষ না হওয়ায় নর্ডস্ট্রিম-১ পুনরায় চালু করা যাচ্ছে না। একটি কম্প্রেসার স্টেশনের তেলের লাইনে ছিদ্র পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি। এর একটি ছবিও প্রকাশ করেছে গ্যাজপ্রম। তবে এটি মেরামত করতে কত দিন লাগবে বা কবে নাগাদ নর্ড স্ট্রিম-১ চালু হবে, সে বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি।
 
ইউরোপের অধিকাংশ দেশই শীতকালে ব্যবহারের জন্য এখনো প্রয়োজনীয় গ্যাস মজুত করতে পারেনি। এ পরিস্থিতিতে মস্কো নর্ড স্ট্রিম-১ দিয়ে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করে দেয়ায় আসন্ন শীত মৌসুমে শিল্পোন্নত ইউরোপীয় দেশগুলোর জ্বালানি সংকটে নাকাল হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।
 
একদিকে রাশিয়ার ওপরে হাজারখানেক পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞার বাণ, অন্যদিকে ইউরোপের অর্থনৈতিক মন্দা। রাশিয়া-ইউক্রেন সংঘাত বিপর্যস্ত করে তুলেছে পূর্ব-পশ্চিমকে। এত দিন তেল-গ্যাসের ব্যাপারে দুপক্ষ ছাড় দিলেও এবার জ্বালানি নিয়ে দ্বন্দ্ব চরমে পৌঁছেছে। ধারণা করা হচ্ছে, রাশিয়ার তেলের ওপর ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞা পুরোপুরি কার্যকর হলে রাশিয়ার তেল রফতানি ৯০ শতাংশ হ্রাস পাবে। একইভাবে আসছে শীতে ইউরোপ রাশিয়ার গ্যাস না পেলে অর্থনৈতিক মন্দা প্রকট আকার ধারণ করবে বলে মনে করেছেন সংশ্লিষ্ট বিশ্লেষকরা।
 
সূত্র: রয়টার্স, বিবিসি, গার্ডিয়ান

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

আরও খবর

Video