ঢাকা , শনিবার, ২০২২ জানুয়ারী ২২, ৮ মাঘ ১৪২৮

জাতীয়

নতুন ইসি গঠন, রাষ্ট্রপতিকে যেসব পরামর্শ দিবে জাপা

নিজস্ব প্রতিবেদক | টুয়েন্টিফোর টিভি
প্রকাশিত : সোমবার, ২০২১ ডিসেম্বর ২০, ১১:৫০ পূর্বাহ্ন

একটি স্বাধীন, নিরপেক্ষ, গ্রহণযোগ্য, শক্তিশালী ও কার্যকর নির্বাচন কমিশন গঠনের লক্ষ্যে আজ শুরু হচ্ছে রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে কাঙ্ক্ষিত সংলাপ। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ আজ সোমবার (২০ ডিসেম্বর) বঙ্গভবনে বিকাল ৪টায় আলোচনায় বসছেন সংসদে প্রতিনিধিত্বকারী প্রধান বিরোধীদল জাতীয় পার্টির সাথে। রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব মো. জয়নাল আবেদীন এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তবে সংলাপের প্রস্তুতি নিয়ে গতকাল রোববার (১৯ ডিসেম্বর) পর্যন্ত জাতীয় পার্টির নেতাদের নিজেদের মধ্যে কোনো বৈঠক করেননি বলে দলটির নেতারা বিভিন্ন গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন। আজ বঙ্গভবনে যাওয়ার আগে বৈঠক হতে পারে বলেও জানিয়েছেন দলটির নেতারা।

এ বিষয়ে জাপার কো-চেয়ারম্যান কাজী ফিরোজ রশীদ রোববার (১৯ ডিসেম্বর) গণমাধ্যমকে বলেন, দলের চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের নেতৃত্বে বিকাল ৪টায় বঙ্গভবনে যাবেন তারা।

জাতীয় পার্টির ৮ সদস্যের প্রতিনিধি দলে রয়েছেন- জি এম কাদের, আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার, কাজী ফিরোজ রশীদ, মুজিবুল হক চুন্নু, সালমা ইসলাম, মশিউর রহমান রাঙ্গা ও আবু হোসেন বাবলা।

জানা গেছে, নির্বাচন কমিশন গঠনে আইন প্রণয়নের পরামর্শ দেবে দলটি। এ বিষয়ে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য মশিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, ‘বসে আলোচনা করে এটা সঠিক একটা আইনে পরিণত করা উচিত। বাংলাদেশের অনেক সংস্থা রয়েছে- যেগুলোর আইন থাকা উচিত।’

এছাড়া জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু বলেছেন, ‘ইসি গঠনে জাপার মতামত নেওয়ার বিষয়ে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি। কিন্তু ইসি গঠনে আইন করা হবে কি না, সেটাও স্পষ্ট নয়। ফলে আগে থেকে কোনো প্রস্তাব নিয়ে যাওয়ার সুযোগ কম। রাষ্ট্রপতি যেসব বিষয়ে জানতে চাইবেন, তারা সেসব বিষয়ে মতামত দেবেন।’

তিনি বলেন, ‘রাষ্ট্রপতির সঙ্গে আলোচনায় স্বাধীন, নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠনের জন্য একটি আইন প্রণয়ন করা আমাদের প্রধান দাবি থাকবে। বাকি আরও কিছু প্রস্তাবনা থাকবে। কিন্তু আইন করার বিষয়টিকে আমরা প্রাধান্য দেব।’

এদিকে মঙ্গলবার (২১ ডিসেম্বর) জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) সঙ্গে রাষ্ট্রপতির সংলাপ হবে।  জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনুও জানিয়েছেন, তারাও একই সুপারিশ করবেন।

তিনি বলেন, ‘স্বাধীনতার ৫০ বছরেও সংবিধানের নির্দেশনা অনুযায়ী নির্বাচন কমিশন গঠনের আইন হয়নি। আমরা মহামান্য রাষ্ট্রপতিকে অনুরোধ করবো, তার জায়গা থেকে যেন এই আইনটা করার বিষয়ে তিনি উদ্যোগ দেন।’

এ বিষয়ে জাসদ সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার বলেন, ‘একটি সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ ইসির জন্য প্রয়োজনীয় যা যা দরকার তা আমাদের মত করে রাষ্ট্রপতির কাছে তুলে ধরা হবে।’

এছাড়া সার্চ কমিটির মাধ্যমে গঠিত কমিশন নিরপেক্ষ ভূমিকা রাখতে পারছে না দাবি করে সংলাপে অংশ না নেওয়ার কথা বলছে বিএনপি।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, যারা সুষ্ঠু নির্বাচন বিশ্বাস করে না, যারা অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচন বিশ্বাস করে না; তারা সংলাপের মধ্য দিয়ে একটা স্বাধীন নির্বাচন কমিশন গঠন করবে এটা কেউ বিশ্বাস করে না, তো সেই সংলাপে গিয়ে কী লাভ।

প্রসঙ্গত, এর আগে নবম, দশম ও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে রাজনৈতিক দলগুলোর অংশগ্রহণে সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়েছিল। রাষ্ট্রপতিকে সিইসি এবং অনধিক চারজন নির্বাচন কমিশনার নিয়োগের ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। গত কয়েকটি মেয়াদে রাষ্ট্রপতি 'সার্চ কমিটি'র সুপারিশের ভিত্তিতে নির্বাচন কমিশন গঠন করেছেন। বর্তমান ইসির পাঁচ বছরের মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি। এ সময়ের মধ্যেই রাষ্ট্রপতি নতুন কমিশন গঠন করবেন, যাদের অধীনে অনুষ্ঠিত হবে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

আরও খবর

Video